বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ৯, ২০২০

মুশফিকের ডাবল সেঞ্চুরি, বাংলাদেশের ইনিংস ঘোষণা

  • Abashan
  • ২০২০-০২-২৪ ১৬:৫০:০৯
image

সকালে হাফসেঞ্চুরির আনন্দ। দুপুরে সেঞ্চুরির উচ্ছ্বাস। বিকেলে ডাবল সেঞ্চুরির গর্বিত হাসি। ঢাকা টেস্টের তৃতীয় দিন মুশফিকময় হয়ে থাকল! ব্যাট হাতে মুশফিক যেন ম্যাজিক দেখালেন। নিরাপদ, নির্ভুল ও নিশ্চিত ভঙ্গিতে-ডাবল সেঞ্চুরির আনন্দময় যাত্রার সঙ্গী হলেন মুশফিকুর রহিম। টেস্টে এটি তার তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি। দিনের খেলা শেষ হওয়ার আধঘণ্টা আগে মুশফিক ডাবল সেঞ্চুরির মাইলফলকে পৌঁছান। খেলেন ৩১৫টি বল। বাউন্ডারি হাঁকান ২৮টি। মুশফিকের অপরাজিত ২০৩ রানের সেঞ্চুরির পরপরই ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। স্কোরবোর্ডে বাংলাদেশের রান তখন ৬ উইকেটে ৫৬০ রান। ম্যাচে বাংলাদেশ এগিয়ে ছিল ২৯৫ রানে।


সেঞ্চুরি অনেকেই করে। কিন্তু মুশফিক একটু ব্যতিক্রম। তিনি সেঞ্চুরিকে ডাবল সেঞ্চুরিতে পরিণত করেন। ক্যারিয়ারের ৭টি সেঞ্চুরির মধ্যে তিনটিই তার ডাবল সেঞ্চুরি! আরও অবাক করা তথ্য হলো টেস্টে সর্বশেষ যে দুটো সেঞ্চুরি করেছেন মুশফিক; তার দুটোই ডাবল সেঞ্চুরি! মিল আরো আছে, দুটোতেই প্রতিপক্ষ একই-জিম্বাবুয়ে। মাঠও একই- শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম। এখন পর্যন্ত টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে ডাবল সেঞ্চুরির সংখ্যা ৫টি। যার তিনটির মালিক মুশফিকুর রহিম!

 

আগের দিনের ৩২ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের সকাল শুরু করেন মুশফিক। দিনের শুরুতেই ঝটপট হাফসেঞ্চুরিতে পৌঁছে যান। ১০ বাউন্ডারিতে ৯৫ বলে হাফসেঞ্চুরি পুরো হয় তার। লাঞ্চের আগেই সেঞ্চুরির ঘ্রাণ পেয়ে যান। অপরাজিত ৯৯ রান নিয়ে লাঞ্চে যান। ফিরে এসে নিজের খেলা সাত নম্বর বলেই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে সেঞ্চুরির আনন্দে মেতে উঠেন। সেঞ্চুরিটা এলো তার ১৬০ বলে, ১৮ বাউন্ডারিতে। কিন্তু শুধু সেঞ্চুরিতে তৃপ্ত হওয়ার মতো ব্যাটসম্যান নন মুশফিক। ক্যারিয়ারের সপ্তম সেঞ্চুরি শেষে নতুন করে গার্ড নিলেন। নিজেকে তৈরি করলেন যেন নতুন করে। সেই পথে হেঁটেই দিনের শেষ সেশনের প্রথম ঘণ্টায় পৌঁছে গেলেন ১৫০ রানে। খেললেন ২৫৪ বল। দেড়শ রানের মাইলফলকে পৌঁছানোর পর ছোট্ট করে আনন্দটা উদযাপন করলেন। বড় আনন্দ যেন জমিয়ে রাখলেন ডাবল সেঞ্চুরির জন্য!

 

দিনের খেলার শেষ ঘণ্টায় প্রতীক্ষিত সেই ডাবল সেঞ্চুরির উচ্ছ্বাসে নিজে এবং গ্যালারির দর্শকদের ভাসালেন মুশফিক। ইনিংসের পুরোটা জুড়ে কোনো সময় মনেই হয়নি মুশফিককে আউট করতে পারবে জিম্বাবুয়ের বোলাররা।


এ জাতীয় আরো খবর