শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২১, ২০২০

‘অবিশ্বাস্য’ অর্জন

  • Abashan
  • ২০২০-০২-১০ ১১:৩৫:৪৫
image

টস জিতে সতীর্থ বোলারদের ওপর পরম আস্থায় প্রতিপক্ষকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানালেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ অধিনায়ক আকবর আলী। আস্থার প্রতিদানও দিলেন বাংলাদেশের বোলাররা। ভারতীয় ব্যাটিং মানেই প্রতিপক্ষ বোলারদের জন্য কঠিন এক পরীক্ষা। সেখানে উল্টো ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষায় ফেললেন বাংলাদেশের বোলাররা। পুরো ৫০ ওভার ব্যাটই করতে পারল না ভারত। ১৬ বল বাকি থাকতেই অলআউট মাত্র ১৭৭ রানে।

 

এরপর ব্যাটিংয়ে বিপদ এসেছে। ম্যাচও হাতছাড়া হতে যাচ্ছিল। কিন্তু দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে শিরোপা জিতে নিয়েছে বাংলাদেশ। ঐতিহাসিক শিরোপা জয়ের পর স্পিনার রাকিবুল হাসান বলেন, ‘এটা অবিশ্বাস্য এক অভিজ্ঞতা। আমরা এখানে যে পরিকল্পনা নিয়ে এসেছি, তা দারুণভাবে কাজে লেগেছে। নির্দিষ্ট দিনে যে দল পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারবে, তারাই শিরোপা জিততে পারবে। আজ আমরা সেটা করে দেখাতে পেরেছি। চোট নিয়েও দ্বিতীয়বার ব্যাট করতে নেমে জয়ের মঞ্চ গড়ে দেয়া পারভেজ হোসেন ইমন বলেন, ‘অসাধারণ এক অভিজ্ঞতা। আমরা এখন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। খুবই দারুণ অনুভূতি। রান তাড়া করাটা কঠিন ছিল। কিন্তু সত্যিই অনেক পরিশ্রম করেছি।’

 

গতকাল পচেফস্ট্রুমে অনূর্ধ্ব-১৯ ফাইনালে জুনিয়র টাইগারদের বোলিংয়ের ধার কেমন ছিল, সেটা অনুধাবন করার জন্য একটা তথ্যই যথেষ্ট। সর্বশেষ ১২ ম্যাচে ভারতের এ দলটি অলআউট হয়নি একটিবারের জন্যও। সেই দলটিকে বিশ্বকাপ ফাইনালের মতো আসরে সব কয়টি উইকেট হারানোর স্বাদ দিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা।

 

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই উইকেট আগলে রাখার কৌশল নেয় ভারতীয় যুবারা। রান তোলার চেয়ে উইকেট বাঁচানোর দিকেই বেশি নজর দেয় দলটি। প্রথম ১০ ওভার শেষে মাত্র ২৩ রান ওঠে তাদের ইনিংসে। একটা পর্যায়ে মনে হচ্ছিল উইকেট হাতে রাখার কৌশলে তারা সফল। ভারত শতরানে পৌঁছায় ২৮.২ ওভারে। অথচ তখনো তাদের হাতে ৯ উইকেট। ওভারপ্রতি রান সাড়ে তিনেরও নিচে। হাতে উইকেট থাকার সুবিধা নিয়ে ভারত শেষ দিকে রানের পাগলা ঘোড়া ছোটাতে চেয়েছিল। কিন্তু গতবারের চ্যাম্পিয়নদের এ কৌশল পুরোপুরি ব্যর্থ করে দেন বাংলাদেশের বোলাররা।

 

জুনিয়র টাইগারদের আঁটসাঁট বোলিংয়ের সামনে হাত খুলে খেলতে পারেননি ভারতের সেট ব্যাটসম্যানরা। খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসতে চাইলেই উইকেট তুলে নিয়েছেন বাংলাদেশের বোলাররা।

 

যশস্বী জয়সওয়াল প্রান্ত আগলে রেখে খেলেও বাড়াতে পারেননি রানের গতি। সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন জয়সওয়াল। শরিফুল ইসলামের আগের বলটিকে করলেন সীমানা ছাড়া। ৮৮ রানে খেলছেন এবারের পুরো বিশ্বকাপ বোলারদের ঘাম ছুটিয়ে দেয়া জয়সওয়াল। এ ম্যাচের সপ্তম ওভারের শেষ বলে এই প্রথম বাউন্ডারি খেলেন শরিফুল। আগের ছয় ওভারে কোনো ব্যাটসম্যানই তাকে বাউন্ডারি মারতে পারেননি। বিপজ্জনক হয়ে ওঠা জয়সওয়ালকে বাউন্সার দিলেন শরিফুল। পুল করতে চাইলেন জয়সওয়াল। তার শট ঠিকঠাক হলো না। বল চলে গেল শর্ট মিড উইকেটে দাঁড়ানো তানজিদ হাসানের হাতে। ৮৮ রানে সাজঘরমুখো হলেন এ ভারতীয় ওপেনার। নতুন করে উজ্জীবিত হয়ে উঠল জুনিয়র টাইগাররা।

 

আক্রমণাত্মক কৌশল নিয়ে ভারতকে আটকে দিলেন বোলাররা। ওই একই ওভারে পরের বলেই সিদ্ধেশ বীরকে শিকারে পরিণত করলেন শরিফুল। এখান থেকে আর ভারতকে উঠে দাঁড়ানোর সুযোগ দেননি বাংলাদেশের বোলাররা। ভারত শেষ ৭ উইকেট হারায় মাত্র ২১ রানে। দলটির মাত্র তিনজন ব্যাটসম্যান পান দুই অংকের ঘরের নাগাল।


এ জাতীয় আরো খবর