রবিবার, জুন ৭, ২০২০

করোনাভাইরাস : অনিশ্চয়তায় বৈশ্বিক শেয়ারবাজার

  • Abashan
  • ২০২০-০২-০২ ১১:১৯:১৯
image

বর্তমানে বিশ্বজুড়ে আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের কারণে ২৫০ জনের বেশি মারা গেছে। আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১২ হাজার। ভাইরাসটির প্রভাব আর কেবল চীনেই সীমাবদ্ধ নেই। যুক্তরাষ্ট্র, থাইল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স, কানাডা, নেপালসহ আরো কয়েকটি দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্তদের শনাক্ত করা গেছে। এমনকি আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতেও সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে।

 

করোনাভাইরাস আরো ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। কারণ চীন ভ্রমণপিয়াসীদের জন্য আকর্ষণীয় এক গন্তব্য। আর চীনা নববর্ষকে সামনে রেখে সাম্প্রতিক সময়ে সেখানে বিদেশী পর্যটকদের আনাগোনাও বেড়ে গেছে। তারা দেশে ফিরে যাওয়ার সময় করোনাভাইরাসের বাহক হয়ে ফিরতে পারেন—এমন আশঙ্কা অমূলক নয়।

 

আরেকটি বিষয় হলো, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি চীন। উৎপাদনমুখী শিল্পে তারা ঈর্ষণীয় অগ্রগতি অর্জন করেছে। বিশেষ করে তথ্যপ্রযুক্তিসংশ্লিষ্ট খাতে তারা যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের শীর্ষ কোম্পানিগুলোর কন্ট্রাক্ট ম্যানুফ্যাকচারার হিসেবে কাজ করে। আবার তৃতীয় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রযুক্তি, নির্মাণসহ বিভিন্ন খাতেও রয়েছে চীনা কোম্পানিগুলোর বিচরণ। ফলে ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যেও চীনের সঙ্গে বাকি বিশ্বের সংযোগ সবসময়ই সক্রিয়। জুনোটিক ভাইরাস হওয়ায় করোনাভাইরাস মানুষ বা অন্য পশুর মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা অত্যন্ত প্রবল। সুতরাং চীনে মানুষের আসা-যাওয়ার মাধ্যমে বাকি বিশ্বে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

 

বৈশ্বিক অর্থনীতিতে করোনাভাইরাসের প্রভাব কেমন হবে, তা এখনই বলা সম্ভব নয়। তবে ভাইরাসটি নিয়ে বিনিয়োগকারীরা যে যথেষ্ট উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। করোনাভাইরাসের প্রভাবে এরই মধ্যে অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে এশিয়ার শেয়ারবাজার। সর্বশেষ কার্যদিবস শুক্রবার এশিয়ার শীর্ষ সূচকগুলোর সিংহভাগই ছিল নিম্নমুখী। কেবল জাপানের নিক্কেই২২৫ ও অস্ট্রেলিয়ার এসঅ্যান্ডপি/এএসএক্সই কিছুটা বেড়েছে।

 

চীনের সাংহাই কম্পোজিট সূচক গত সপ্তাহে কমেছে ৩ দশমিক ২২ শতাংশ। আর এক মাসে কমেছে দশমিক ৯৫ শতাংশ। হংকংয়ের হ্যাংসেং সূচক গত এক সপ্তাহে ৫ দশমিক ৮৬ ও এক মাসে ৭ দশমিক ৫২ পয়েন্ট হারিয়েছে। ভারতের এসঅ্যান্ডপি বিএসই সেনসেক্স গত সপ্তাহে পয়েন্ট হারিয়েছে ৪ দশমিক ৫১ শতাংশ।

 

এখন নজর দেয়া যাক মার্কিন শেয়ারবাজারের দিকে। ডাও জোনস গত এক সপ্তাহে পয়েন্ট খুইয়েছে ২ দশমিক ৫৩ শতাংশ। নাসডাক কম্পোজিট হারিয়েছে ১ দশমিক ৭৬ শতাংশ পয়েন্ট। আর এসঅ্যান্ডপি৫০০ হারিয়েছে ২ দশমিক ১২ শতাংশ। তথৈবচ অবস্থা ইউরোপের শেয়ারবাজারেও। শুক্রবার পয়েন্ট হারিয়েছে এ অঞ্চলের শীর্ষ সব সূচকই।


এ জাতীয় আরো খবর